মায়ের ভাষা মাতৃভাষা

আন্দলনের এই মূহুর্তে প্রাণপ্রিয় Apu Ahmed ভাইয়ের নিচেরলেখাটি অনন্ত্য গুরুত্ব পুর্ণ।এমন সময়ে, সময় উপযোগি এইলেখাটি অবশ্যই কেন্দ্রীয়নেত্রিবৃন্দের কাছে পৌছাতে হবে।যে যেভাবে পারেন লেখাটিবেগম জিয়া পর্যন্তপৌছানোর ব্যাবস্থা করুন...........এবার ঢাকা স্বাধীনহবে ইনশায়াল্লাহ।ফেসবুকে ঢাকা স্বাধীন হয়েগিয়েছিলো বহু আগে। আজকেরাজপথেও স্বধীকার আন্দোলণচালু হলো।গত কালকে আমি যখন বিএনপিনেত্রীর সংবাদ সম্মেলন নিয়েআশাব্যঞ্জক স্টেটাসদিয়েছিলাম, তখন কেউ কেউফোরণ কেটেছিলেন এটা বলেযে, বিএনপির নেতা কর্মীদেরদিয়ে কিছু হবে না। কিন্তুআজকে যারা ঢাকা ছিলেন,তারা জানেন যে, কি জটিলপ্রতিরোধ সংগঠনিত হয়েছে।মিডিয়ার সেন্সর থাকার কারণেএগুলো আমরা হয়তো জানতেপারিনি।ফেসবুকে যা কিছু এসেছে সেটাছিটেফোটা বলতে পারে।বিএনপি কর্মীরা আত্নবিশ্বাসফিরে পাচ্ছে।এটা কন্টিনিউ করা সময়েরদাবি।এজন্য দেশনেত্রীকে কিছুঘোষনা দিতে হবে।একঃ- শুধুমাত্র অবরোধ নয়,প্রয়োজনে অসহযোগ ঘোষনাকরে দিয়ে অবৈধ সরকারকেসব ধরণের সহযোগীতা করাথেকে সরকারী, বেসরকারীপ্রতিষ্ঠানকে স্পষ্ট বার্তা দিতেহবে।পাবলিককে বুঝাতে হবে যেএটা অবৈধ সরকার, তাকেসকল ধরনের সহযোগীতা বন্ধকরতে হবে। সরকারীবেসরকারী সকল প্রতিষ্টান বন্ধকরতে হবে।যারা ওপেন রাখবে তারাজনগণ কর্তৃক প্রতিহত হলেভবিষ্যতে এ বিষয়ে কোনপ্রতিকার আশা করা যাবে না।দুইঃ- সরকারের বিরুদ্ধেচলমান এই সংগ্রামকেশৃংখলীত স্বাধীনতাপুণরুদ্ধারের দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধহিসেবে ঘোষণা দিতে হবে।পরবর্তিতে দেশপ্রেমিক সরকারক্ষমতায় আসলে এই যুদ্ধেসক্রিয় অংশগ্রহণকারী আহত,নিহত এবং নির্যাতিতদের জন্যরাষ্ট্রি পদ পদবি ঘোষনা করেদিতে হবে।একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধাদের সাথেবর্তমান যোদ্ধাদের জন্য রাষ্ট্রিয়ভাতা এবং নিহত শহীদদেরপরিবারের দায়িত্ব্য রাষ্ট্র গ্রহণকরবে, এই মর্মে ঘোষনা দিতেহবে।তিনঃ- সকল দলের সম্বনয়েসংগ্রাম পরিষদ গঠন করেপরিকল্পিত আন্দোলণ করতেহবে।বিশেষ করে জামায়াত শিবিরেরসাথে বিএনপি, যুবদল,ছাত্রদলের নেতাদের যোগাযোগবাড়াতে হবে।প্রতিটি জেলায় বিশেষ ফান্ডতৈরি করে আহত নিহতের জন্যতাৎক্ষনিক অনুদান ঘোষনারব্যবস্থা রাখুন।এ কাজে বিএনপির স্থানীয়শিল্পপতিদের কে কাজেলাগানো যেতে পারে।যে কোন জায়গায় কেউ আহতবা নিহত হলে তাদেরপরিবারের জন্য তাৎক্ষনিকভাবে অনুদাণ ঘোষনা দিয়েকর্মীদের মানসিক মনোবলবাড়াতে হবে।এমন যেন না হয় আহত হয়েযাওয়ার পরে চিকিৎসারঅভাবে সক্রিয় কোন কর্মীমৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।চারঃ- প্রতিটি জেলার নিচেরদিকের নেতাদের সাথে বেগমজিয়া সরাসরি টেলিসংলাপেরআয়োজন করে তাদের আশ্বস্তকরুন যে, যারা ময়দানে ভূমিকানেবে, আগামী দিনের কমিটিতেকেবল তাদের নাম থাকবে।সিনিয়র যারা ময়দান ছেড়েসরে যাবে, তাদের দল থেকেভবিষ্যতে বহিস্কার করে দেওয়াহবে।এ ঘোষনা তৃণমূলে সক্রিয়নেতাদের সংখ্যা বেড়ে যাবে।বিজয় ইনশাআল্লাহ আসবেই।